নিম্ন প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টি

আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় – নিম্ন প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টি।যা “যুগ যুগব্যাপী নাচ” খন্ডের অন্তর্ভুক্ত।

নিম্ন প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টি

 

নিম্ন প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টি

 

এখন যেটা ফ্রান্স সেখানে কয়েক শত সহস্র বৎসর পূর্বে আদি মানুষের পাথরে আঁকা চিত্র আমাদের কাছে নাচের প্রাচীন ইতিহাসের জন্য শুধুমাত্র প্রত্যক্ষ তথ্যরূপে বিদ্যমান। এই তথ্য নিশ্চিত হবার জন্য খুব কম-বিশেষ করে যে সমস্ত বিষয় আমরা দেখতে চাই সেগুলি এই খুবই জটিল গোলক-ধাঁধাঁময় পাথরে আঁকা চিত্র পড়তে আমাদের পক্ষ থেকে খুবই সতর্ক থাকতে হবে।

শুধুমাত্র অল্পকিছু আঁকঝোঁকের সঠিকভাবে তরজমা স্বীকৃত হয়েছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিবেক বুদ্ধিমান পন্ডিতগণের নিশ্চিত ব্যাখ্যা দিতে আগায়ে আসা উচিত নতুবা খন্ড লড়াই এর দৃশ্য যুদ্ধের-নাচ অথবা ফকিরতান্ত্রিক উর্ধমুখি হাত ছাড়ানকে হর্ষোল্লাস-নাচ রূপে তরজমা দেবার সমুহ বিপদের ঝুঁকি নিতে হবে।

যে কোন ক্ষেত্রে নাচের চিত্র পাওয়া তুলনামূলকভাবে খুবই দূর্লভ। যার জন্য প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় চিত্রকর সাধারণতঃ এই উপায়ে সহানুভূতিপূর্ণ যাদুর নির্দিষ্ট প্রতিক্রিয়া নিজের ইচ্ছার বহিপ্রকাশের জন্য আঁকত, তার নাচকে প্রতিচ্ছবিত করার খুব অল্পই কারণ আছে কেননা অন্য উপায়ে একই প্রয়োজন মিটান হয়ে যেত।

এখানে আমাদেরকে প্রাগৈতিহাসিক বিতর্কের সমস্যা এড়ায়ে চলার জন্য সাবধান থাকতে হবে। আমরা হয়ত প্রাচীন প্রস্তর যুগ ও নতুন প্রস্তর যুগকে ব্যাপকার্থে ভালভাবে ব্যবহার করতে পারি। কিন্তু সূক্ষ্ম উপ-বিভাগ যেমন অরিগনেশিয়ান, * সলুট্রের,* ম্যাগডেলনিয়ান * এবং ক্যাপশিয়ান * মতে আমাদের তদন্তে না যেয়ে এড়ায়ে যাওয়া ভাল হবে। (* নিম্ন প্রস্তর যুগের বিভিন্ন রূপ)

আমাদের কাছে যদি প্রচুর পরিমাণে সেটা না থাকে তবে প্রাচীন কালের খুবই অস্পষ্ট চিত্র নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে, সত্যি বলতে কি আজকের প্রান্তিক পর্যায়ের লোকজনের মধ্যে নাচের সহায়ক বিষয়বস্তু অঢেল বিদ্যমান। ইউরোপের বিভিন্ন প্রাচীন কৃষ্টির হুবহু অন্য অংশ আজকের অনেক আদিবাসীদের মধ্যে পাওয়া যায়।

স্পেনীয় অথবা ফরাসী মাটিতে খননকৃত প্রাগৈতিহাসিক কালের বাসস্থান, পবিত্রস্থান ও প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় শিকারীদের গোরস্থানে প্রাপ্ত গৃহস্থলী দ্রব্য, যন্ত্রপাতি, হাতিয়ার, কঙ্কাল এবং এই সকল প্রাপ্ত দ্রব্যসমূহ থেকে কৃষ্টির স্তর ও গতিপ্রকৃতি নির্ণীয় করা হয়।

বিভিন্ন স্থানে খনন কাজের মধ্যে একটা নির্দিষ্ট সভ্যতার ফুটে উঠা চিত্রে নিশ্চিত হওয়া যায় যে, মানবজাতিতত্ত্বজ্ঞ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে আবিস্কার করে ইতিহাস পূর্বকালে দক্ষিণ-পূর্ব-অস্ট্রেলিয়ান ও অন্য আদিম গোষ্ঠীর নিম্নস্তরে অবস্থার : চিত্র একই রকম তারা কৃষ্টির একই স্তরে অবস্থান করে, তাদের একই রকম বাসস্থান, কবর দেবার প্রথা, হাতিয়ার, যন্ত্রপাতি ও গৃহস্থলী দ্রব্য এবং তাদের একই রকম কারুকাজে নৈপূণ্যের অভাব ছিল।

 

google news logo
আমাদেরকে গুগল নিউজে ফলো করুন

 

অথবা প্রাগৈতিহাসিক বেলচা পরবর্তী নতুন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টিকে উদ্ধার করতে পারে সেখানে, যেখানে পরিস্কার দেখা যায় সমসামিয়িক রোপণকারীদের বৈশিষ্ট্যের উপাদান যেমন তাদের আয়তাকার কুঁড়েঘর, মৃৎপাত্র ও অদ্ভুত বৈচিত্রময় হাতিয়ার, যন্ত্রপাতি, গৃহস্থলী দ্রব্য ও প্রাথাসমূহ।

প্রাগৈতিহাসিক কাল, পূর্ববর্তী ও পরবর্তী প্রস্তর যুগ, ব্রঞ্জযুগ ও লৌহ যুগের কথা বলুক বা না বলুক অথবা ম্যাগডেলনিয়ান অরিগনেশিয়ান অথবা সলুউট্রেনের মত নিম্নবৃষ্টির সমাজকে সংজ্ঞায়িত করুক বা না করুক তাদের আমরা বর্তমানেও প্রায় সব সময় কিছু কিছু আদিম জনগোষ্ঠির মধ্যে তাদের কৃষ্টির প্রতিফলন দেখি।

মানবজাতিতত্ত্বজ্ঞগণ প্রায় সব সময় “হয়” এর পরিবর্তে প্রাগৈতিহাসিক “ছিল” পরিবর্তন করতে সক্ষম। যেটা ইউরোপে মরে গেছে (কৃষ্টির স্তর) এক স্তরের নিচে আর এক স্তর আবৃত হয়ে গেছে কিন্তু সময়ের নির্দিষ্ট গন্ডী অতিক্রম করে পৃথিবীর অন্য অংশে জীবন্ত হয়ে আছে ।

এইরূপে সহ অবস্থানের যাত্রাপথে বিভিন্ন জাতি-সত্তার উত্তরণ ঘটে এবং ইথলজি (মানব চরিত্র বিজ্ঞান) হয়ে উঠে ইতিহাস । সুতরাং নাচের উন্নতির কার্যক্রমের ধারার সঙ্গে ইউরোপের কথা বলতে গেলে আদিম মানুষকে অবশ্যই ছাড়া যাবেনা তাদের নাচের বিবর্তনের ধারা একই সঙ্গে পাশ্চাত্য সভ্যতায় প্রাচীন নাচের ইতিহাস।

 

নিম্ন প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টি

 

যাইহোক, আমাদের কাছে মানব-চরিত্র-বিজ্ঞান অথবা প্রাক্-ইতিহাস মানুষের নাচের মৌলিকত্ব ব্যক্ত করেনা। তার চেয়ে আমাদের উচিৎ হবে এপসদের নাচ থেকে অনুমান করা : উৎফুল্লতা, প্রাণবন্ত গোলক নাচে প্রায় লম্বা শক্তভাবে বাঁধা জিনিসপত্র যা মানুষের কাছে এসেছে তার জীবজন্তুর পূর্ব-পুরুষ থেকে।

আমরা তাই ধরে নিতে পারি গোল হয়ে নাচা প্রাচীন প্রস্তর যুগীয় কৃষ্টির স্থায়ী অন্তঃস্থ ব্যাপার হয়ে ছিল যা মানব সভ্যতার প্রথম বোধগম্য স্তর।

আরও দেখুনঃ

Leave a Comment